ঈদের আগে মাত্র ১৫ দিনে ওজন কমানোর ডায়েট চার্ট

 amitumi_weight loss before eid

সামনে ঈদ, আর ঈদ মানেই অনেক সাজসজ্জার জমকালো আয়োজন। সকলেই চান ঈদের দিনে তাঁকে লাগুক সারা বছরের মাঝে সবচাইতে সুন্দর। পোশাক তৈরি ও রূপচর্চা নিশ্চয়ই শুরু হয়ে গেছে? কিন্তু বাড়তি ওজনটার কী করবেন? থাক, আর চিন্তা করতে হবে না। ঈদের আগেই মাত্র ১৫ দিনে বেশ কয়েক কেজি ওজন কমানোর সিক্রেট ফর্মুলা নিয়ে হাজির হলাম আমরা। নিজের সুবিধা মত বেছে নিয়ে অনুসরণ করুন যে কোন একটি পদ্ধতি, আর ঈদের আগেই হয়ে উঠুন স্লিম। একই সাথে হয়ে উঠুন সৌন্দর্যে ঝলমলে।

বেছে নিন ডায়েট চার্ট-
ওজন কমাতে চাইলে প্রথমেই ডায়েট করতে হবে। কিন্তু এত যে রকমারি স্বাদের ইফতার, সেগুলো খাবেন না? অবশ্যই খাবেন। এখানে দেয়া হলো নারী ও পুরুষের জন্য দুটি ভিন্ন ডায়েট চার্ট। বলাই বাহুল্য যে নারী ও পুরুষের শরীরের গড়ন ভিন্ন, ক্যালোরির প্রয়োজনও ভিন্ন। তাই তাঁদের ডায়েট চার্টটাও হবে আলাদা।

নারীদের সারাদিনের ডায়েট চার্ট
ক্যালরি—১২০০

ইফতার:
ছোলা ভাজা আধা কাপ = ৮০ গ্রাম,
পেঁয়াজু দুটি ছোট,
বেগুনি একটি,
খেজুর দুটি,
কলা ছাড়া ফল যেকোনো একটি,
সুগার ফ্রি দিয়ে শরবত এক গ্লাস,
হালিম এক বাটি (সুপের),
আলুর চপ একটি
মুড়ি এক মুঠো

সন্ধ্যা রাতে:
ভাত এক কাপ = ১২০ গ্রাম,
মাছ অথবা মাংস এক টুকরা = ৩০ গ্রাম,
সবজি ইচ্ছামতো।

সেহরিতে:
ভাত দেড় কাপ,
মাছ অথবা মাংস এক টুকরা = ৩০ গ্রাম,
ডাল আধা কাপ,
সবজি ইচ্ছেমতো,
দুধ আধা কাপ।

পুরুষের জন্য ডায়েট চার্ট
ক্যালরি ১৬০০

ইফতার:
ছোলা ভাজা ৩/৪ কাপ = ১২০ গ্রাম,
পেঁয়াজু তিনটি ছোট,
বেগুনি দুটি,
মুড়ি এক কাপ,
খেজুর দুটি,
সুগার ফ্রি দিয়ে শরবত এক গ্লাস
ফল যেকোনো একটি,
হালিম দুই বাটি (সুপের),
আলুর চপ দুটি।

সন্ধ্যা রাতে:
ভাত আড়াই কাপ = ৩০০ গ্রাম,
মাছ অথবা মাংস দুই টুকরা = ৬০ গ্রাম,
সবজি ইচ্ছেমতো

সেহরিতে:
ভাত দুই কাপ = ৩৬০ গ্রাম,
মাছ অথবা মাংস দুই টুকরা = ৬০ গ্রাম,
ডাল এক কাপ,
সবজি ইচ্ছেমতো,
দুধ এক কাপ।

একটুখানি ব্যায়াম-
এই ডায়েটটুকু করলে এমনিতেই ওজন কমবে। কিন্তু যদি আপনি আরেকটু বেশি ওজন ঝরাতে চান, তাহলে করুন খানিকটা শারীরিক পরিশ্রমও। কিন্তু কীভাবে করবেন রোজায় ব্যায়াম? পরামর্শ হচ্ছে, ব্যায়ামটা করুন ইফতারের আগে! হ্যাঁ, ইফতারের পর এত আলসে লাগবে যে ব্যায়াম করার এনার্জি পাবেন না। তাই ব্যায়াম সেরে নিন ইফতারের এক ঘণ্টা আগেই। তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে শাওয়ার সেরে, ইফতার করে বিশ্রাম নিন ও ইবাদত বন্দেগী করুন। দেখবেন ব্যায়াম করার কষ্টটা অনুভবই করবেন না।

ব্যায়াম হিসাবে বেছে নিতে পারেন আধা ঘণ্টা হতে এক ঘণ্টা হাঁটা, সাইকেল চালানো, ফ্রি হ্যান্ড ব্যায়াম, এরোবিক্স, ওয়েট লিফটিং ইত্যাদি। মনে রাখবেন, ব্যায়াম করার পর মেটাবলিজম অনেকটাই বেশি থাকে। তাই ইফতারের খাবারটা শরীরের জমার বদলে দ্রুত হজম হয়ে যায়। আর এটাও ওজন কমাতে অত্যন্ত সহায়ক।

আপনার ওজন কতখানি বেশি ও আপনি কতটুকুন ব্যায়াম করলেন তার ওপরে নির্ভর করে ১৫ দিনে আপনার ৩ থেকে ৭ কেজি ও তার বেশিও ওজন ঝরতে পারে।

তবে আর দেরি কেন। আজই শুরু করে ফেলুন।

সূত্র: প্রিয় লাইফ

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail