কোহলির ব্যর্থতার বিরাট কারণ আনুশকা!

amitumi_kohli & anuska

বিরাট কোহলির সঙ্গেই ভারতীয় দলের টিম হোটেলে ছিলেন আনুশকা, মাঠে পারফরম্যান্স খারাপ কোহলির। এ দুইয়ের যোগসূত্র মিলিয়ে নাখোশ টিম ম্যানেজমেন্ট, যা নিয়ে আগামী বোর্ড সভাতেই উঠতে পারে ঝড়- এমনটাই খবর ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের।

ইংল্যান্ড সফরে টেস্ট সিরিজে লজ্জাজনক হারের পর পরই ভারতীয় দলের কোচ ডানকান ফ্লেচারের কড়া সমালোচনা চলছে গণমাধ্যমে। সেই আঁচ কমতে না কমতেই ‘বিরাট’ কারণ পাওয়া গেছে ব্যর্থতার। এই ‘কারণ’ রক্ত-মাংসে গড়া, নাম তাঁর আনুশকা শর্মা। পরিচয় বলিউড অভিনেত্রী এবং বিরাট কোহলির গার্লফ্রেন্ড। বিরাট কোহলির সঙ্গেই ভারতীয় দলের টিম হোটেলে ছিলেন আনুশকা, মাঠে পারফরম্যান্স খারাপ কোহলির। এ দুইয়ের যোগসূত্র মিলিয়ে নাখোশ টিম ম্যানেজমেন্ট, যা নিয়ে আগামী বোর্ড সভাতেই উঠতে পারে ঝড়- এমনটাই খবর ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের।

মাঠে স্টুয়ার্ট ব্রড-জেমস অ্যান্ডারসনদের সুইং ও গতির ঝড় সামলাতে না পেরে ১০ ইনিংসে মোট ১৩৪ রান কোহলির। এবার মাঠের বাইরেও তাঁর জন্য অপেক্ষা করে থাকতে পারে ঝড়ঝাপটা! বান্ধবীকে নিয়ে একই সঙ্গে টিম হোটেলে ছিলেন কোহলি, যা সম্পূর্ণ নীতিবিরুদ্ধ। এ নিয়ে একাধিক বিসিসিআই কর্মকর্তা উত্তেজিত। জানা গেছে, ইংল্যান্ড সফরে আনুশকাকে টিম হোটেলে দেখে অবাক হয়েই ব্যাপারটা বোর্ডের নজরে এনেছিলেন একাধিক কর্মকর্তা। কিন্তু অভিযোগ জানাতে গিয়ে নিজেরাই উল্টো বিস্মিত হয়ে পড়েন, যখন তাঁরা জানতে পারেন অনুমতি নিয়েই একসঙ্গে থাকছেন বিরাট-আনুশকা! শুনে তাঁরাও তাজ্জব হয়ে যান, এমন নজিরবিহীন অনুমতি কে দিল? ভারতীয় দলের একটি অভ্যন্তরীণ সূত্রে ভারতীয় দৈনিকের খবর, দলের ম্যানেজার ও দিল্লি ক্রিকেট সংস্থার উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা সুনীল দেবও ভালোভাবে নেননি টিম হোটেলে আনুশকার উপস্থিতি। তিনি ইংল্যান্ড থেকেই বোর্ড সচিব সঞ্জয় প্যাটেলকে ফোন করেছিলেন ব্যাপারটা জানাতে। অন্য প্রান্ত থেকে উত্তর শুনে তিনিই হকচকিয়ে যান, কারণ সচিব নাকি তাঁকে পাল্টা জানিয়েছিলেন তাঁরা অনুমতি নিয়েই থাকছেন। এরপর সঞ্জয় আরো জানতে চান, তাঁরা একসঙ্গে কিভাবে থাকেন, তাঁরা তো বিবাহিত নন? তাহলে কিভাবে থাকছেন। এরপর যদি দলের অন্যরাও স্ত্রী-বান্ধবীদের সঙ্গে নিয়ে থাকতে চান, তাহলে কী হবে?

বোর্ডের ভেতরকারই কারো কারো মতে, সচিব নাকি দাবি করেছেন বিরাট আনুশকাকেই বিয়ে করবেন! সেটা জেনেশুনেই একসঙ্গে থাকতে দেওয়া হচ্ছে। এদিকে দায়িত্ব পালন করে টেস্ট সিরিজের শেষে ভারতে ফিরেছেন সুনীল, তবে ট্যুরে কী ঘটেছে না ঘটেছে সেটা নিয়ে গণমাধ্যমে মুখ খুলতে জোর আপত্তি তাঁর। সুনীল মুখ না খুললেও ধারণা করা হচ্ছে, ম্যানেজারের প্রতিবেদনের একটা বড় অংশজুড়েই থাকবে ‘বিরাট-আনুশকা’ অধ্যায়। তবে সবচেয়ে জরুরিভাবে যে প্রশ্নের উত্তর খোঁজা হচ্ছে, তাহলো কে অনুমতি দিল? নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বোর্ডের শীর্ষ এক কর্মকর্তার মন্তব্য, ‘আমরা নেদারল্যান্ডস বা জার্মানি ফুটবল দল নই যে খেলোয়াড়দের স্ত্রীদের পাশাপাশি বান্ধবীদেরও হোটেলে থাকতে দেওয়া হবে। ভারতীয় বোর্ডে এমন নজির নেই। আর স্কুলের স্যার যদি ছাত্রদের সব আবদার মাথা পেতে নেন, তাহলে সেই স্কুলে অনুশাসন বলে কিছু থাকে না।’

সূত্র: কালেরকণ্ঠ

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail