আপনার শিশু কি আসলেই অসুস্থ নাকি সে ভান করছে? জেনে নিন ৫টি উপায়ে

amitumi_is child lying about sickness

স্কুলের বছরগুলোতে সব বাবা-মাকেই এই সমস্যাটির সম্মুখীন হতে হয়-সন্তানকে স্কুলে যাওয়ার জন্য তৈরি করা যে কিনা অসুস্থ বোধ করছে। তার হয়তো পেটে ব্যথা বা গলা ব্যথা বা সে হয়তো ভালভাবে ঢোক গিলতে পারছেনা। রাতের বেলায় হঠাৎ করেই তার সারা শরীরে ব্যথা হতে পারে যার কারণ হয়তো ফ্লু বা ভাইরাস। কিন্তু অনেক সময় শিশুরা স্কুলে না যাওয়ার জন্য ও অসুস্থতার ভান করে থাকে। তাহলে জেনে নেয়া যাক শিশুর কোন লক্ষণগুলো দেখে বুঝা যায় যে সে আসলে অসুস্থ নয় বরং অসুস্থতার ভান করছে।

১। যদি তার লক্ষণগুলো অস্পষ্ট হয় এবং খুব কম সময়ের মধ্যে শরীরের এক স্থান থেকে অন্য স্থানে পরিবর্তন হয়

যদিও বড় ও চালাক শিশুরা তাদের অসুস্থতা বোঝানোর জন্য নির্দিষ্ট রোগের লক্ষণই বলে থাকে, কিন্তু ছোট শিশুরা অতটা সতর্ক থাকেনা। যদি আপনার শিশু সন্তান পেটে ব্যথার কথা বলে আবার এক মিনিট পরেই মাথা বা কানে ব্যথা করছে বলে তাহলে তার উপর নজর রাখুন।

২। যদি আপনার শিশু সন্তান সুবিধামত সময়ে অসুস্থ হয় যেমন- স্কুলের পরীক্ষার সময়ে বা বিশেষ কোন ক্লাসের আগে অসুস্থতার কথা বলে

অনেক শিশুই মিথ্যা অসুস্থতার কথা বলে কিছু সমস্যাকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্য যার জন্য তারা উদ্বিগ্নতায় ভোগে। টেস্ট, পারফরমেন্স ও স্পোর্ট ইভেন্ট এর ক্ষেত্রে এমন হতে পারে। উদ্বিগ্নতা খুবই সাধারণ একটি বিষয়, তাই আপনার উচিৎ এই বিষয়ে তার সাথে কথা বলা। মাঝে মাঝে শিশুর বিতৃষ্ণা গুরুতর হতে পারে যেমন- শিক্ষক বা প্রশাসকের সাথে দ্বন্দ্ব। তাই আপনার সন্তানের সাথে আপনার যোগাযোগ বজায় রাখাটা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ যাতে তাকে মিথ্যা অসুস্থতার দোহাই দিতে না হয়। সব সময় স্কুলের বিষয়ে খোঁজ খবর রাখুন।

৩। যদি নিয়মিত তার জ্বরের তাপমাত্রা বেশি না হয়

শরীরের গড়পড়তা তাপমাত্রাই অসুস্থতার লক্ষণ। তাই জ্বর আসলে এক ঘন্টা বা দুই ঘন্টার মধ্যে দুইবার তাপমাত্রা চেক করুন। যদি তাপমাত্রা থাকে তাহলে সে অবশ্যই স্কুলে না যেয়ে বাসায় থাকবে। আমারা জানি যে শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি করা যায় বিভিন্ন ভাবে। কিন্তু মিথ্যা তাপমাত্রা বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়না এবং তা দুই এক বার মাপার পরেই বুঝা যায়। যদি আপনার সন্তানের জ্বর না থাকা সত্ত্বেও সে অসুস্থতার কথা বলে তাহলে অন্য কোন উপসর্গ পাওয়া যায় কিনা খেয়াল করুন।

৪। তার চোখগুলো যদি ক্লান্তিতে নুয়ে পড়ে এক মুহূর্তের জন্য আবার পরক্ষনেই যদি এনার্জেটিক দেখায়

বেশিরভাগ অসুস্থ শিশুরাই এমন কোন কাজ করতে উৎসাহী হয়না যা সে সুস্থ থাকলে উপভোগ করতো। যদি আপনার সন্তানটি টিভিতে কোন প্রোগ্রাম দেখতে অনেক বেশি মজা পায় এবং তার যদি অন্য সময়ের চেয়ে বেশি ঘুমানোর প্রয়োজন না হয় তাহলে আপনি তার ভান ধরে ফেলতে পারেন।

৫। যদি সে ডাক্তারের কাছে যেতে অস্বীকৃতি জানায় এবং ঔষধ খেতে না চায়

যদিও কিছু শিশু ডাক্তার ও ঔষধ অপছন্দ করে। কিন্তু সত্যিকার অসুস্থ হলে ঠিকই ডাক্তারের চিকিৎসা মেনে নেয়। যদি আপনার সন্তানটি অসুস্থ হওয়ার পরও ডাক্তারের কাছে যেতে না চায় এবং ঔষধ খেতে না চায় তাহলে আপনি বুঝে নিতে পারেন যে সে ভান করছে।

এই কয়েকটি লক্ষণ দেখে আপনি ধারণা করতে পারেন যে আপনার সন্তানটি হয়তো স্কুল ফাঁকি দেয়ার জন্যই অসুস্থতার দোহাই দিচ্ছে। তার প্রতি নজর রাখুন তাহলেই আপনি বুঝতে পারবেন সে আসলেই অসুস্থ কিনা। প্রথমেই সন্দেহের কথা তাকে না বলে সত্যি অসুস্থ কিনা তা পর্যবেক্ষণ করুন এবং প্রয়োজনে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান।

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail